অনুবাদ:কল্যাণী রমা

সোমবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১১

তারা জ্বলা রাত

মূলঃ এ্যান সেক্সটন

শহরটা নেই
শুধু সেইখানে ছাড়া
যেখানে গনগনে আকাশে ডুবে মরেছে যে নারী,
তার মত ভুল পথে উড়ে গেছে  
এক কালো-চুল গাছ।
শহর চুপচাপ। রাত ফুটছে – এগারোটা তারার সাথে, টগবগ।
আহা! তারায় তারা জ্বলা রাত! এভাবেই
আমি মরে যেতে চাই।

ও নড়ছে। জ্যান্ত ওরা সব।
এমন কি চাঁদের পেটও ফুলে উঠছে,
কমলা লোহায় ক্ষত পুড়িয়ে
ঠেলে সন্তানের জন্ম দিচ্ছে চাঁদ, ঈশ্বরের মত, চোখের ভিতর থেকে।
তারাদের গিলে খাচ্ছে পুরনো, অজানা সাপ।
আহা! তারায় তারা জ্বলা রাত! এভাবেই
আমি মরে যেতে চাইঃ
রাতের বেপরোয়া জন্তুটার ভিতর,
ওই বিশাল ড্রাগন আমাকে শুষে খাবে, তারপর আমার জীবন থেকে আমাকেই
টুকরো করে ছুঁড়ে দেবে, চিহ্নহীন,
নেই পেট।
নেই কান্না।


৪টি মন্তব্য:

  1. তোমার অনুদিত কবিতা পড়লে ইচ্ছে হয় বলি, রমা তুমি যতটা পারো পূর্ণ কর এই শূন্যস্থান। অশেষ ধন্যবাদ।

    উত্তরমুছুন
  2. ফেরদৌস নাহারের সাথে আমি সম্পূর্ণ একমত। আমাদের আকুন্ঠ সমর্থন থাকলো আপনার এইরকম প্রচেষ্টায়। বিশ্ব সাহিত্যের সাথে আমাদের নাড়ীর বন্ধন আরো জোরদার হোক।

    আজকের কবিতায় অন্যরকম এক ফ্লেবার পেলাম। আমাদের বুঝে নিতে সাহায্য করছে, আমাদের অবস্থান। অনুবাদ সাহিত্যের জয় হোক।

    উত্তরমুছুন
  3. Henry Berbusse-এর বিখ্যাত L'enfer বা Hell বইটির পেছনমলাটে লেখা হয়েছিল ...pathologically preoccupied with...suffering. অ্যান সেক্সটনের ব্যাপারটাও তাই, সিলভিয়ার যেমনটা ছিল। এই প্রবণতা টেনেছিল আমাকে কেন কে জানে। খুব। তোমারও প্রিয় খুব জানিয়েছিলে। সুতরাং কাজটিও মনপ্রাণ ঢেলে করবে যে তা-ই স্বাভাবিক। তা-ই করেছ। আরও করে যাও। আলতাফ হোসেন।

    উত্তরমুছুন
  4. অসাধারণ, আর কিছু লেখার খুঁজে পাচ্ছি না।

    উত্তরমুছুন